টাঙ্গাইলের নয়াকৃষির কিষাণি রিনা বেগম জাতি সংঘ খাদ্য দিবস পুরস্কার পেলেন


কৃষিতে অবদানের জন্য জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা টাঙ্গাইল দেলদুয়ার উপজেলার নয়াকৃষি আন্দোলনের কিষাণি রিনা বেগমকে  পুরস্কার করেছেন।  জাতিসংঘ খাদ্য ও কৃষি সংস্থা (এফএও) ২০১৫ সালের বিশ্ব খাদ্য দিবস ১৬ অক্টোবর উপলক্ষ্যে এই স্বীকৃতি ও পুরস্কার দিয়েছে। খাদ্য ও কৃষি সংস্থার আঞ্চলিক কার্যালয় রিনাকে পুরস্কার গ্রহণ করবার জন্য ব্যাংকক পাঠিয়েছে। জাতিসংঘ খাদ্য ও কৃষি সংস্থার পক্ষ থেকে  থাইল্যান্ডের রানী তাকে পুরস্কার প্রদান করেন।

রিনা বেগমকে কৃষি মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকেই বাছাই করা হয়। তিনি দীর্ঘদিন ধরেই নয়াকৃষি আন্দোলনের সঙ্গে জড়িত রয়েছেন। নয়াকৃষির কৃষকরা আন্তর্জাতিক ভাবে বিখ্যাত 'দশ নীতি' অনুসরণ করে। নয়াকৃষি পদ্ধতির প্রাথ্মিক স্তর হচ্ছে কোন সার ও বিষ ব্যবহার না করে একর প্রতি অধিক ও বিচিত্র ফসল ফলানো। ভূস্তর থেকে পানি তুললে  আর্সেনিকের দূষণ ঘটতে পারে এবং মাটির ক্ষতির সম্ভাবনা রোধ করবার জন্য নয়াকৃষিতে মাটির তলা থেকে পানি তোলা হয় না, ভূস্তরের ওপরের পানি ব্যবহার করা হয়। এমন কোন ফসলের জাত ব্যবহার করা হয় না যাতে সুপেয় পানির অপচয় ঘটে।

নয়াকৃষি আন্দোলনের সফলতার প্রধান কারণ হচ্ছে বহু বছরের গবেষণা ও অভিজ্ঞতায় গড়ে ওঠা প্রাণ ও পরিবেশ সম্মত প্রাণবৈচিত্র ভিত্তিক কৃষি ব্যবস্থা। কৃষকের বীজ ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করা নয়াকৃষি আন্দোলনের প্রধান দিক। লক্ষ্য হচ্ছে  পরিবেশ ও প্রকৃতির চরিত্র অনুযায়ী স্থানীয় বীজ ব্যবহার করে প্রকৃতির কাছ থেকে অধিক ফলন আদায় করা।

নয়াকৃষির ফসল  বিষমুক্ত নিরাপদ ও পুষ্টিকর। ছবিতে রিনা বেগমকে নয়াকৃষি বীজ সম্পদাগারের সামনে কাজ করতে দেখা যাচ্ছে। 

১২ নভেম্বর সন্ধ্যা ৬ টায় চ্যানেল ২৪ এই তার পুরস্কার গ্রহণের অনুষ্ঠান দেখানো হয়েছে।


ছাপবার জন্য এখানে ক্লিক করুন


৫০০০ বর্ণের অধিক মন্তব্যে ব্যবহার করবেন না।