ধোঁয়াবিহীন তামাকজাত দ্রব্য (জর্দা, গুল, সাদাপাতা) ব্যবহার নিয়ন্ত্রণে কর আরোপ সংক্রান্ত মত বিনিময় সভা


তাবিনাজ আয়োজিত "ধোঁয়াবিহীন তামাকজাত দ্রব্য (জর্দা, গুল, সাদাপাতা) ব্যবহার নিয়ন্ত্রণে কর আরোপ" সংক্রান্ত একটি মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয় তোপখানা রোড ঢাকায় বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন (বিএমএ ভবন) এর সভা কক্ষ ৪র্থ তলায়।  ৫ মার্চ, ২০১৭ তারিখে সকাল দশটা থেকে দুপুর একটা পযর্ন্ত এই সভা চলে।

সভায় তাবিনাজ এর পক্ষ থেকে সূচনা বক্তব্য পাঠ করেন সাইদা আখতার, সমন্বক, তাবিনাজ (তামাক বিরোধী নারী জোট)। সঞ্চালনার দায়িত্বে ছিলেন সীমা দাস সীমু, সদস্য, তাবিনাজ (তামাক বিরোধী নারী জোট)।

সভা প্রধান মো: আসাদুজ্জামান, প্রফেসরিয়াল ফেলো, বি আই ডি এস, ঢাকা।

বিশেষ অতিথিবৃন্দ, মুহাম্মদ রূহুল কুদ্দুস, সমন্বয়কারী, জাতীয় তামাক নিয়ন্ত্রণ সেল, যুগ্ম-সচিব, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়। ব্রি. জে. শেখ সালাউদ্দীন, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা, ঢাকা দক্ষিণ সিটি কপোরেশন। সাইফুল হাসিব, মহাপরিচালক, বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্স এন্ড টেষ্টিং ইন্সিটিটিউশন (বি. এস. টি. আই)।  ডা. মাহফুজুর রহমান ভূঁইয়া, গ্রান্ড ম্যানেজার ক্যাম্পেইন ফর টোবাকো ফ্রি কিডস (সিটিএফকে), বাংলাদেশ।

আলোচকবৃন্দ: ড. রুমানা হক, অধ্যাপক, অর্থনীতি বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। অধ্যাপক ডা. লায়লা পারভীন বানু, অধ্যক্ষ, গণস্বাস্থ্য সমাজ ভিত্তিক মেডিকেল কলেজ, সাভার, ঢাকা। এড. সৈয়দ মাহবুবুল আলম, কনসালটেন্ট, দি ইউনিয়ন। মোশহেদা সুলতানা, এ্যাসিস্যটান্ট প্রফেসার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা। এবিএম জোবায়ের, নির্বাহী পরিচালক, প্রজ্ঞা। সুশান্ত সিনহা, সিনিয়ার রির্পোটার, যমুনা টেলিভিশন, ঢাকা। মোহাম্মদ মাইনুল ইসলাম, সহকারী কর কমিশনার, রাজশাহী।

মুক্ত আলোচনা: নূর এ জান্নাত, নির্বাহী পরিচালক, সেচ্ছাসেবী বহুমুখী সমাজ কল্যাণ সমিতি, রাজশাহী।
আমিনুল ইসলাম সুজন, সম্পাদক, সমস্বর ম্যাগাজিন।


অংশ গ্রহণকারী


তামাক বিরোধী নারী জোট (তাবিনাজ) ২০১০ সাল থেকে সারা দেশের নারী প্রধান সংগঠনদের নিয়ে তামাক নিয়ন্ত্রণের জন্য কাজ করে আসছে। বর্তমানে ৬৪ টি জেলায় ৭২ টি সংগঠনের মাধ্যমে ধোঁয়াবিহীন তামাকজাত দ্রব্য (জর্দা, গুল, সাদাপাতা) সহ অন্যান্য সকল ধরনের তামাক নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে।

বাংলাদেশে ধোঁয়াবিহীন তামাক ব্যবহার নারীদের মধ্যে পুরুষদের তুলনায় বেশী। এটা বেশ উদ্বেগজনক। দেশের জনগণ স্বাস্থ্যেরের নানান হুমকির সম্মুিখন হচ্ছে, বিশেষকরে ক্যান্সারসহ অসংক্রামক রোগ এবং মুখে ও দাঁতের মারাত্মক রোগে ভুগছে। জর্দা, গুল ও সাদাপাতার দাম অত্যন্ত কম হওয়ার কারণে এর ব্যবহার কমানো কঠিন হয়ে পড়ছে। এবং বিশেষ করে গরীব মানুষ এর ব্যবহারের দিকে ঝুঁকে পড়ছে।

তামাক দ্রব্যের দাম বৃদ্ধি এবং ব্যবহার নিয়ন্ত্রণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে বলে আন্তর্জাতিক ভাবে স্বীকৃত। ধোঁয়াযুক্ত তামাক দ্রব্য যেমন সিগারেটের উপর কর বৃদ্ধি করে দাম বাড়ান হচ্ছে কিন্তু জর্দা, গুল ও সাদাপাতার উপর কর বৃদ্ধি করা হলেও এর দাম কম হওয়ার কারণে ক্রেতাদের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে যাওয়ার মতো বৃদ্ধি এখনও হয়নি। এ বিষয়ে নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে যথেষ্ট পর্যালোচনা ও গবেষণা হয় নি।

আগামি বাজেটের (২০১৭-২০১৮) আগেই বিশেষজ্ঞদের ও তামাক নিয়ন্ত্রন সংগঠনের প্রতিনিধিদের সাথে ধোঁয়াবিহীন তামাক দ্রব্যের উপর কর বৃদ্ধি সংক্রান্ত এই মতবিনিময় সভা।  বিভিন্ন সংগঠনের প্রতিনিধিবৃন্দের উপস্থিতে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।

ধোঁয়াবিহীন তামাকপণ্যের ব্যবহার নিয়ন্ত্রণে কর বৃদ্ধি

 


ছাপবার জন্য এখানে ক্লিক করুন


৫০০০ বর্ণের অধিক মন্তব্যে ব্যবহার করবেন না।