স্বাস্থ্য সেবায় নার্সদের অবদান


আজ ১৪ মে আন্তর্জাতিক নার্স দিবস। পৃথিবীর সকল দেশেই অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে এ দিবসটি পালন করা হয়। কেননা, স্বাস্থ্য সেবায় নার্সদের অবদান অতিবগুরুত্বপূর্ণ। কোন অবস্থাতেই নার্সদের ছাড়া স্বাস্থ্যসেবা ভাবাই যাবে না। একজন রোগী এবং তার স্বজনরা চিকিৎসা ব্যবস্থায় সবচেয়ে কাছে যাকে পায় তিনি একজন নার্স। সরকারী বা বেসরকারী হাসপাতালগুলো যখন গভীর রাতে ঘুমিয়ে থাকে তখন বিনিদ্ররাত কাটান এই নার্সরা। আজকের এ দিনে তাদের অভিবাদন জানাই।

পৃথিবীর অন্যান্য দেশের সাথে তুলনা করলে আমাদের দেশের স্বাস্থ্য স্বাস্থ্যসেবা এবং ব্যবস্থাপনা অসম্ভব অদ্ভুদ রকমের। কেননা, স্বাস্থ্য সেবা ব্যবস্থাপনায় জনবলের দিক থেকে বাংলাদেশ অনেক পিছিয়ে। চিকিৎসা বিজ্ঞানের বিবেচনায় স্বাস্থ্যসেবা পরিচালনায় একজন চিকিৎসকের সঙ্গে অন্তত ৪ জন নার্স থাকা আবশ্যক। অথচ বাংলাদেশ ৬৪,০০০ রেজিষ্টার্ড চিকিৎসকের বিপরীতে নার্স রয়েছেন ৩০,০০০ এর মতো। অর্থাৎ ২জন চিকিৎসকের সাথে কাজ করার জন্য মাত্র ১জন নার্স।


 

নার্স


বিষয়টি অত্যন্ত দুংখজনক ও পরিতাপের। অথচ দেশ চলছে। স্বাস্থ্য ব্যবস্থা চলছে। কিন্তু সেবাগত অব্যবস্থাপনা মারাত্মকভাবে বিপর্যস্ত। অর্থাৎ সেবা গ্রহীতারা যেমন ক্ষুব্ধ, বিমর্স ও হতাশ, তেমনি নার্সরাও। কেননা জনবল, তাদের চাকুরীর অনিশ্চয়তা, অনিয়ম এবং অবদানের অবমূল্যায়ণ। তাই আমাদের দেশের স্বল্প সংখ্যক নার্সরাও চাকুরী নিয়ে বিদেশে চলে যাচ্ছেন।

 

এবারের আন্তর্জাতিক নার্স দিবসের প্রতিপাদ্য হচ্ছে “নার্সরা পরিবর্ত্তনের শক্তি” (Nurses: A Force for Change)- অত্যন্ত সময়োযযোগী এ বিষয়ের সঙ্গে দেশের স্বাস্থ্য ব্যবহার ভবিষ্যত জড়িয়ে আছে। কারণ, যেখানে স্বাস্থ্য সেবার অভাবে মানুষ নীরবে মরে যাচ্ছে, যন্ত্রনায় কাতরাচ্ছেন যেখানে নার্সরা সংখবদ্ধ হয়ে অব্যবস্থাপনার বিপরীতে পরিবর্তনের শক্তি হিসেবে জেগে উঠতে পারেন। আমরা আশা করি, বর্তমানে ভেঙ্গে পড়া স্বাস্থ্য ব্যবস্থা পরিবর্তনে নার্সরা শক্তি হিসেবে জেগে উঠবেন।

 


Click Here To Print


Comments Must Be Less Than 5,000 Charachter