উবিনীগ


উন্নয়ন বিকল্পের নীতি নির্ধারণী গবেষণা

জলবায়ু পরিবর্তন ও খাদ্য উৎপাদন

জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত আন্তদেশীয় কমিটি বা IPCC (Intergovernmental Panel On Climate Change) এ বছর আগস্ট মাসে কৃষি সংক্রান্ত, বিশেষ করে খাদ্য উৎপাদন নিয়ে, সতর্কতামূলক একটি প্রতিবেদন দিয়েছে। এতে বলা হয়েছে কৃষি এবং খাদ্য উৎপাদনের সাথে জড়িত কর্মকাণ্ড বৈশ্বিক গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমনের (GHG) ক্ষেত্রে ৩৭% দায়ি। এই প্রতিবেদন তৈরি করেছেন বিশ্বের ১০০ জন বিজ্ঞানী; তাঁরা কৃষিতে জমির ব্যবহার এবং এর কারণে জলবায়ুতে কি ধরণের প্রভাব পড়ছে তা খতিয়ে দেখেছেন। তাঁরা হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছেন বিশ্বের উষ্ণতা কমাতে হলে খাদ্য উৎপাদনের ব্যবস্থা ঢেলে সাজাতে হবে। সুনির্দিষ্টভাবে তাঁদের প্রস্তাব হচ্ছে জমির সঠিক ব্যবহার, খাদ্য তালিকায় মাংস কমিয়ে আনা এবং খাদ্য অপচয় (আরো পড়ুন )


কয়লা ব্যবহারই বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধির মূল কারণ

বাংলাদেশে নির্বাচনের দিন ঘনিয়ে আসছে। অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন করার শর্ত কিছুটা পূরণ হয়েছে ঠিকই, কিন্তু স্বচ্ছ, সব দলের সমান সুযোগ সৃষ্টি করার পরিবেশ, নির্বাচন কমিশনের নিরপেক্ষ ও স্বাধীন ভূমিকা, ভোটারদের নির্ভয়ে ভোট দিতে পারার পরিবেশ হবে কিনা, এ বিষয়ে এখনো মানুষ শঙ্কিত। কারণ এখন সব আক্রমণ চলছে প্রার্থীর ওপর, সময়মতো ভোটারও আক্রান্ত হবে।

তবু নির্বাচন এলে আমাদের কিছু বিষয় অবতারণার সুযোগ হয়। ক্ষমতাসীন দল আবার ক্ষমতায় আসতে চায় উন্নয়নের ধারাবাহিকতার দোহাই দিয়ে। জিডিপির হার বাড়ছে এবং আরো বাড়বে বলে তারা অঙ্গীকার করছেন। উন্নয়নের একটি সূচক হচ্ছে, দেশে ঘরে ঘরে বিদ্যুতের আলো জ্বলবে, গাড়ি চলবে, বড় রাস্তা হবে ইত্যাদি। যদিও এ আলো সব বাড়িতে একইভাবে জ্ব (আরো পড়ুন )


জলবায়ু পরিবর্তন সম্মেলনে পাওয়ার আশা ক্ষীণ

জাতিসংঘের আয়োজনে ২৩ সেপ্টেম্বর নিউইয়র্কে জলবায়ু শীর্ষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এবারের সভায় কী ফল আসবে তা নিয়ে আগেই অনেকে হতাশ হয়ে আছেন-এ কারণে যে, ধনী দেশ, যারা পৃথিবীর তাপমাত্রা বৃদ্ধি, কার্বন নির্গমনসহ জলবায়ু পরিবর্তনের কারণগুলোর জন্য প্রধানত দায়ী, তারাই উল্টো উন্নয়নশীল দেশগুলোকে চাপ দিচ্ছে কার্বন নির্গমন কমাবার অঙ্গীকারের জন্য।

অন্যদিকে তারা নিজেরা এর জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ কিংবা প্রযুক্তিগত সাহায্য দেবে কিনা-তার কোনো ইশারাও নেই। গ্রিন ক্লাইমেট ফান্ড (GCF) করার জন্য যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্ররা তাদের জন্য ধার্য অর্থ দেয়ার বিষয়টি নিয়ে অঙ্গীকার করতে দেরি করেই যাচ্ছে। এ গ্রিন ক্লাইমেট ফান্ড মেক্সিকোর কানকুন শহরে ২০১০ সালে অনুষ্ঠিত জলবায়ু (আরো পড়ুন )


ডারবান জলবায়ু সম্মেলন

পরিবেশ সম্মত কৃষি এনে দেবে কোটি মানুষের খাদ্যের নিশ্চয়তা

জলবায়ু পরিবর্তন সম্মেলন কপ-১৭ ডারবানে শুরু হয়েছে ২৮ নভেম্বর, শেষ হবে ডিসেম্বর ৯ তারিখে। বাংলাদেশে এই উপলক্ষে আর কিছু না হোক পরিবেশ মন্ত্রী ডা. হাছান মাহমুদের পদোন্নতি ঘটেছে। আগে তিনি গেছেন প্রতিমন্ত্রী হিসেবে, এবার যাচ্ছেন পূর্ণ মন্ত্রী হিসেবে। যদিও এর ফলে ডারবানে বাংলাদেশের কদর কতখানি বাড়বে বা হিশাব নিকাশে কি বদল ঘটবে তা বলা মুশকিল। আমাদের চিন্তা এই মুহুর্তে সার্বিকভাবে জলবায়ূ পরিবর্তনের কারণে বাংলাদেশের মতো ঝুঁকিতে রয়েছে এমন দেশ গুলোর ভবিষ্যত কি হবে? ধনী দেশগুলো আসলেই তাদের দায়িত্ব পালন করবে কি?

কিওটো প্রটোকল ১৯৯৭ সালে শুরু হয়েছে (আরো পড়ুন )