উবিনীগ


উন্নয়ন বিকল্পের নীতি নির্ধারণী গবেষণা

ডুবো ধান বনাম বোনা আমন ধান

ইংরেজি দৈনিক দি ডেইলি ষ্টার এর ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৫ সংখ্যায় ইনোভেটিভ রাইস ফার্মিং ইন দি নর্থ (উত্তর অঞ্চলে নব প্রবর্তিত ধানের আবাদ) শিরোনামে একটি সংবাদ ছাপা হয়। এ সংবাদের শুরুতে লেখা হয় ২০১৪ সালে বাংলাদেশের উত্তর অঞ্চলে নীচু এলাকায় বসবাসরত জনগণ এক ভয়াবহ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ হয়। ঐতিহ্যগতভাবে প্রচলিত ধানের জাতগুলি ১৫ দিন পানির তলায় ডুবে থাকে। ফলে ফসল বিনষ্ট হয়।

এ খবরে প্রকাশিত বন্যার খবরটি সত্য তবে ঐতিহ্যগতভাবে প্রচলিত ধানের জাতগুলি বিনষ্ট হওয়ার বিষয়টি বির্তক সৃষ্টি করেছে।

পানির উপর ভিত্তি করে স্মরণাতীতকাল থেকে এ অঞ্চলের মানুষের জীবন জীবিকা বিকশিত হয়েছে। বাংলাদেশের ২০% জমি স্বাভাবিক অবস্থায় বর্ষা মৌসুমে প্লাবিত হয়। আবার বড় বন্যা য (আরো পড়ুন )


ভারতের পঁচা চালে কৃষকের সর্বনাশ

গত বছরের তুলনায় এ অর্থবছরে (২০১৪-১৫) ১ জুলাই, ২০১৪ থেকে ৬ মে, ২০১৫ পর্যন্ত সময় চাল আমদানি তিনগুণ বেড়েছে। এ সময় বেসরকারী ভাবে ১৩ লক্ষ মেট্রিক টন চাল আমদানি হয়েছে। শুল্ক মুক্ত হওয়ায় ব্যবসায়ীরা ভারত থেকে চাল আমদানির আনন্দ উপভোগ করেছেন। স্থানীয় উৎপাদনে নিজস্ব চাহিদা পূরণের সুযোগ থাকা সত্ত্বেও আমদানি করা চালে বাজার সয়লাব হয়েছে।

পর পর গত কয়েক বছর বোরো এবং আমন ফসল ভাল হওয়া সত্ত্বেও ভারত থেকে শুল্কমুক্ত চাল আমদানি করার ফলে অনেক মিল মালিকের গত বছরের চাল এখনও অবিক্রিত রয়েছে। এ অবস্থায় মিল মালিকরা সরকারকে চাল আমদানি না করার জন্য দাবি জানিয়ে আসছেন। তবে উচ্চ পর্যায়ের কিছু সরকারী কর্মকর্তারা যুক্তি দেখিয়েছেন যে আমদানি করা নিম্ন মানের চাল পশু খা (আরো পড়ুন )


খাদ্য নিরাপদ কিনা ভাবনায় এবার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

জাতিসংঘের বেশ ক'টি গুরুত্বপূর্ণ সংস্থা রয়েছে, যারা নিজ নিজ কাজ স্বতন্ত্রভাবেই করে। এটা অনেকটা আমাদের দেশের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের কাজের মতোই। সবকিছুই জনগণের জন্য করা; কিন্তু যার যার কাজ সে করে যাচ্ছে নিজের মতো করে। কারও সঙ্গে কারও কাজের সমন্বয় নেই। জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থার একেকটি বিভাগ তেমনই নির্দিষ্ট দায়িত্বের বাইরে খুব বেশি কাজ করে না। কেউ শান্তি রক্ষা করছে, কেউ উন্নয়ন করছে, কেউ শিশুদের রক্ষা করছে, কেউ মাতৃ স্বাস্থ্য রক্ষার চেষ্টা করছে ইত্যাদি। কিন্তু সবই যে ঘুরেফিরে এক জায়গার, একই পরিবার বা গোষ্ঠীর ব্যাপার হতে পারে, তা বোধহয় ভেবে দেখা হয় না। দেশে মানবাধিকার ক্ষুণ্ন হলে কথা বলে, কিন্তু সরকার সে কথায় কান না দিলে ভদ্র মানুষের মতো চুপ হয়ে যা (আরো পড়ুন )


দেশে কী বিষমুক্ত নিরাপদ খাদ্য পাওয়া যায়!

দেরীতে হলেও এটা আশার কথা যে সরকার মানতে বাধ্য হচ্ছেন বাংলাদেশে বিষ মুক্ত খাদ্য পাওয়া এবং খাওয়া দুটোই বেশ শক্ত। নজির হচ্ছে ডেইলী স্টার, ২৮ এপ্রিল ২০১৪ প্রকাশিত সংবাদ শিরোনাম “৪০% খাদ্য বিষাক্ত”। এই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে এফএও এর আর্থিক সহায়তায় সরকারী ল্যাবোরেটরিতে খাদ্য শস্যের নমুনা পরীক্ষার ফলাফল বিশ্লেষণ করে খাদ্য শস্যে বিষাক্ত পেস্টিসাইডের মাত্রা বেশি থাকায় খাদ্য বিষাক্ত। খাদ্য বিষাক্ততার মান ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের নিরাপদ খাদ্য মানের সঙ্গে তুলনা করা হয়েছে। পরীক্ষিত খাদ্য নমুনায় যে সব খাদ্যে বিষাক্ততা চিহ্নিত হয়েছে, তারমধ্যে রয়েছে- দুধ ও দুগ্ধজাত খাদ্য, ফল, সবজি, শুটকি মাছ। পেস্টিসাইডে বিষাক্ত খাদ্যের মধ্যে ৫০% সবজি, ৩৫% ফল খাদ্য হ (আরো পড়ুন )


খাদ্য উৎপাদ্ন নিরাপদ করার প্রশ্নে

এক

জেনেটিকালি মডিফাইড (GM) বীজ বা বিকৃত বীজের প্রতি নীতিনির্ধারকদের পক্ষপাতিত্ব বাংলাদেশের কৃষিব্যবস্থাকে সর্বনাশের দিকে নিয়ে যাবার বিপদ তৈরী হয়েছে। অন্যান্য দেশের তুলনায় আমাদের সমাজে এ ব্যাপারে সচেতনতা কম। এটা বিপজ্জনক। বাংলাদেশে জেনেটিকালী মডিফাইড (জিএম) শস্য বা খাদ্য উৎপাদনের গবেষণা দেশে বিদেশে নানা আপত্তি সত্ত্বেও চলছে। মনসান্টো, সিনজেন্টা ও আরও বহুজাতিক কোম্পানি আন্তর্জাতিক ও দ্বিপাক্ষিক সাহায্য সংস্থা, সরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান এবং কৃষি বিজ্ঞানী ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলো প্রায় এক যুগ ধরে বিকৃত বীজের ওপর গবেষণা করে আসছেন। তাঁরা বলছেন খাদ্য উৎপাদনের জন্ (আরো পড়ুন )