উবিনীগ


উন্নয়ন বিকল্পের নীতি নির্ধারণী গবেষণা

বাংলাদেশে ধোঁয়াবিহীন তামাক উৎপাদন নারী শ্রমিকদের কাজ

উবিনীগ (উন্নয়ন বিকল্পের নীতিনির্ধারণী গবেষণা) এর একটি অনুসন্ধানমূলক গবেষণা

ধোঁয়াবিহীন তামাকজাত দ্রব্যের ব্যবহার

বাংলাদেশে প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে ধোঁয়াবিহীন তামাকজাত দ্রব্য (জর্দা, গুল ও সাদা পাতা) প্রাপ্তবয়স্ক জনগোষ্টির মধ্যে ব্যবহারকারীর সংখ্যা শতকরা ২০.৬ ভাগ (২ কোটি ২০ লক্ষ)। ধোঁয়াবিহীন তামাক ব্যবহারকারী নারীদের মধ্যে বেশী (২৮%) প্রাপ্তবয়স্ক নারী। ব্যবহারকারীর মধ্যে ধোঁয়াযুক্ত তামাক ব্যবহারকারীর ১৮% এর বেশী (১ কোটি ৯২ লক্ষ)। [গ্যাটস, ২০১৭] ভারত এবং নেপালের পরেই ৯টি দক্ষিণ পূর্ব এবং দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলির মধ্যে ধোঁয়াযুক (আরো পড়ুন )


ভাইরাস সংক্রমণের দুঃসময়ে সকল প্রকার তামাক বিক্রি বন্ধ করুন

করোনা ভাইরাস সংক্রমণের এই দুঃসময়ে দেশের জনস্বাস্থ্য ঝুঁকি বাড়ানোর জন্যে দায়ী সকল প্রকার ধোঁয়া (সিগারেট, বিড়ি) এবং ধোঁয়াবিহীন তামাক (জর্দা, সাদাপাতা ও গুল) পণ্য  অবিলম্বে বিক্রয় বন্ধের নির্দেশনা দেয়া হোক বলে দাবি জানিয়েছেন বাংলাদেশের খ্যাতিমান নারী ব্যাক্তিত্ব।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিবের কাছে ৮৯ জন নারী, যাদের মধ্যে রয়েছেন অভিনেত্রী, সঙ্গীতশিল্পী, গবেষক, চিকিৎসক, উন্নয়নকর্মী, আইনজীবি, শ্রমিক নেত্রী, লেখিকা সহ তামাক বিরোধী নারী জোটের জেলা পর্যায়ের সদস্যরা গত ৮ এপ্রিল ২০২০ এক বিবৃতি দিয়েছেন। তাঁরা দাবি করেছেন তামাক পণ্য কোন নিত্য প্রয়ো (আরো পড়ুন )


আন্তর্জাতিক নারী দিবস: নারীর সমতা অর্জনে বড় বাধা ‘তামাক’

কর্মক্ষেত্রে নারীর প্রতি বৈষম্য ও শোষণের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করতে গিয়েই শ্রমিক নারীদের আন্দোলন শুরু হয়েছিল নিউ ইয়র্কের সুঁই কারখানায়। ১৯১০ সালে জার্মাণীর সমাজতান্ত্রিক নেত্রী ক্লারা জেৎকিন মার্চের ৮ তারিখ আন্তর্জাতিক নারী দিবস হিশেবে ঘোষণা দিয়েছিলেন। যদিও দিনটির পালন সে সময় থেকে গত শতাব্দির সত্তুর দশকের মাঝামাঝি পর্যন্ত কেবল সোভিয়েত রাশিয়াসহ বিভিন্ন সমাজতান্ত্রিক দেশেই গুরুত্ব দেয়া হোত। জাতিসংঘ ১৯৭৫ সালে ৮ই মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবস হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার পর থেকে সরকারি-বেসরকারিভাবে পালন করা হচ্ছে।

সমতার ভিত্তি তৈরি আন্তর্জাতিক নারী দিবসে বিশেষভাবে আলোচনার বিষয়। একই সাথে নারী মুক্তি আন্দোলন ও সংগ্রামের অংশ। সমতা অর্জন করার জন্যে নারীক (আরো পড়ুন )


অর্থকরী ফসলের তালিকায় তামাক কেন?

তামাক ব্যবহার নিয়ন্ত্রণের জন্য অনেক কাজ হচ্ছে। এতে তামাক ব্যবহারের হার প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে কিছুটা কমেছে। বর্তমানে (২০১৭ সালের হিসাবে) প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে ৩৫ দশমিক ৩ শতাংশ (সংখ্যায় ৩ কোটি ৭৮ লাখ মানুষ) ধূমপান এবং ধোঁয়াবিহীন তামাক ব্যবহার করেন, যা আগে (২০০৯ সালে) ৪৩ শতাংশ ছিল। কিন্তু প্রায় চার কোটি তামাক ব্যবহারকারী কোনো দেশে থাকা ভালো কথা নয়। বাংলাদেশ বিশ্বে এখনো সর্বোচ্চ তামাক ব্যবহারকারীদের মধ্যে অন্যতম। এখানে তামাকপণ্যটাই এমন, যা অত্যন্ত সস্তায় পাওয়া যায় এবং যার দাম কমানোর জন্য উৎপাদনকারীরাই দেনদরবার করে। তারা চায় না দাম বাড়ুক। কারণ সিগারেট, বিড়ি, জর্দা, গুলের দাম বাড়লে এবং বিশেষ করে ক্রয়ক্ষমতার বাইরে চলে গেলে তামাক সেবনকারী, যাদের অ (আরো পড়ুন )


মানুষের স্বাস্থ্যের ক্ষতি করে হাকিমপুরি জর্দার মালিক সেরা করদাতা?

বিভিন্ন পত্রিকায় সেরা কর দাতা কারা হলেন তার খবর বেরিয়েছে। ভাল কথা। কিন্তু কর যারা দিচ্ছেন তারা কোন দয়া করে দিচ্ছেন না, এটা তাদের আয়ের উৎসের সাথে মিল রেখে কর ধার্য্য করা হয়েছে বলেই দিচ্ছেন। এটা কোন অনুদান নয়। বাংলাদেশে আয় বেশি হলেও কর দেয়ার সংস্কৃতি এখনো ভালভাবে গড়ে ওঠে নি, এবং কর ফাঁকি দেয়াটাই প্রায় নিয়মে দাঁড়িয়ে গেছে তাই যারা কর দিচ্ছেন তাদের একটু বাহবা দেয়া হয়। অন্যদের উৎসাহ দেয়ার জন্যে। এই উৎসাহ দিতে গিয়ে সরকার এক বছর মেয়াদি কর কার্ড দিচ্ছেন, যার কারণে তারা বিভিন্ন রাষ্ট্রীয় সুবিধা পাবেন। যেমন বিমান বন্দরে সিআইপি লাউঞ্জ ব্যবহার, তারকা হোটেলসহ সব আবাসিক হোটেল বুকিংয়ে অগ্রাধিকার, কর কার্ডধারি নিজে ও তাঁর স্ত্রী বা স্বামী, নির্ভরশীল সন্তান (আরো পড়ুন )


তামাক কোম্পানির কোন প্রকার আর্থিক সহায়তা না নেয়ার সিদ্ধান্ত আইএলও’র

আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (ILO) এর ৩৩৭তম গভর্ণিং বডি’র সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছে যে কোন তামাক কোম্পানি এবং তাদের সহযোগি প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে কোন প্রকার অনুদান বা অর্থ সাহায্য নেয়া হবে না। তারা একটি সম্বনিত কৌশল গ্রহণ করার প্রস্তাব করেছেন যা তামাক সেক্টরে সুষ্ঠু কাজের পরিবেশের যে ঘাটতি রয়েছে তা নিরসনের লক্ষে কাজ করবেন। কাজেই এই কৌশল বাস্তবায়ন তামাক কোম্পানির অর্থ থেকে মুক্ত থেকেই করতে হবে।

Reject Tobacco Funding. Regulate the Tobacco Industry.

আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা ইতিমধ্যে জানিয়েছে যে তারা দুটি তামাক কোম্পানী সম্পৃক্ত প্রতিষ্ঠানের সাথে তাদের চুক্তি নবায়ন করে নি। এই (আরো পড়ুন )


ক্ষতিকর ব্যবসা নিয়ন্ত্রণের সরকারি উদ্যোগে স্বার্থের সংঘাত বাঞ্ছনীয় নয়

তামাক এমন একটি পণ্য, যার ব্যবহারে ক্ষতি ছাড়া কোনো উপকার হয় না। তবু এ পণ্য বাজারে আছে এবং রমরমা ব্যবসা করছে। অর্থাৎ মানুষ পয়সা খরচ করে কিনছে। যারা ব্যবহার করে এবং যারা করে না, সবাই জানে এর ক্ষতির কথা। যখন একজন রিকশাওয়ালাকে দেখি সিগারেটে টান দিয়ে রিকশা চালাতে, কিংবা যখন দেখি একজন মহিলা ইট ভাঙার কাজ করছেন আর মুখ লাল করে জর্দা দিয়ে পান খাচ্ছেন, তখন খুব দুঃখ হয়। এসব পণ্য খুচরা কেনার জন্য খুব সস্তা, তাই খাদ্যের পরিবর্তে কয়েকবার তামাক পণ্য সেবন করে ফেলছেন। বাংলাদেশ বিশ্বে উচ্চ তামাক সেবনকারী দেশ, এখানে তামাক পণ্য খুব সস্তা বলেও ‘খ্যাতি’ আছে। বছরে ১ লাখ ৬২ হাজার মৃত্যু ঠেকাতে তামাক ব্যবহার নিয়ন্ত্রণের জন্য আইন আছে। আন্তর্জাতিক আইন বিশ্ (আরো পড়ুন )


তামাকে মানুষ মরছে আর কোম্পানি মুনাফা লুটছে! 

কালো কাপড় প্রতিবাদের ভাষা।

তামাকে মানুষ মরছে অথচ কোম্পানি কামাচ্ছে মুনাফা। এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাবার জন্য নারী নেমে এসেছেন রাস্তায়। প্রতিবাদ করছেন। তাঁরা বলছেন, নিদেন পক্ষে তামাক দ্রব্যে ওপর কর বাড়াও, যেন তামাকের নেশা কিছুটা হলেও ছুটে যায়। তামাক কোম্পানির লাগাম টেনে ধরুন

বাংলাদেশে তামাকজাত পণ্যের ব্যবহার বেড়েছে। স্বাস্থ্যের মারাত্মক ঝুঁকি থাকা সত্ত্বেও তামাকের বিষয়টি সম্পূর্ণ উপেক্ষা  করা হয়েছে প্রস্তাবিত ২০১৯-২০ অর্থ বছরে বাজেটে। তামাকজাত পণ্যের উপর আশানুরূপ কর আরোপ করা হয়নি। তামাকাজাত পণ্যের ব্যবহার কমানোর জন্য এ বাজেটে কোন প্রতিফলন নাই।

২০১৯-২০ অর্থ বছরের চুড়ান্ত বাজ (আরো পড়ুন )


তামাক চাষ নিয়ন্ত্রণ অত্যন্ত জরুরি

সিগারেট, বিড়ি, জর্দা, গুল, সাদাপাতার মতো ধোঁয়াযুক্ত এবং ধোঁয়াবিহীন তামাক দ্রব্যের ব্যবহার নিয়ন্ত্রণের জন্যে দেশে আইন আছে এবং সেই আইন বাস্তবায়নের জন্যে বিধিমালাসহ নানা ধরণের ব্যবস্থা রয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ফ্রেমওয়ার্ক কনভেনশান অন টোবাকো কন্ট্রোল (এফসিটিসি) এখন সংশ্লিষ্ট সকল কর্মকর্তাদের কাছে পরিচিত। তামাক স্বাস্থ্যের জন্যে ক্ষতিকর, তামাকের কারণে প্রতিরোধযোগ্য রোগে লক্ষাধিক মানুষ মারা যাচ্ছে প্রতি বছর, এই ব্যপারে সচেতনতাও সৃষ্টি হচ্ছে। কিন্তু তামাক নিয়ন্ত্রণ কেবল ব্যবহার বা চাহিদা নিয়ন্ত্রণের বিষয় নয়। এর যোগানের দিক, যেমন তামাক পাতার চাষ, বিড়ি/সিগারেট/জর্দা উৎপাদন নিয়ন্ত্রণ করা না হলে ২০৪০ সালের মধ্যে দেশকে তামাকমুক্ত করার মাননীয় প্র (আরো পড়ুন )


একটি তামাক করনীতি প্রণয়ন এখন সময়ের দাবি

সব দিক বিবেচনায় তামাক একটি ক্ষতিকর পণ্য। অথচ এখনো এর ব্যবহার প্রাপ্তবয়স্ক জনগোষ্ঠীর মধ্যে ৩৫ দশমিক ৩ শতাংশ। সিগারেট, বিড়ি, জর্দা, সাদাপাতা ও গুলের ব্যবহার এমন পর্যায়ে চলে গেছে, যেন মনে হয় এগুলো দৈনন্দিন জীবনের প্রয়োজনীয় অংশ। অথচ আন্তর্জাতিকভাবেই এসব পণ্যের ক্ষতির দিক প্রমাণিত। তাই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তামাক নিয়ন্ত্রণের সনদ মেনে অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও ২০০৫ সাল থেকে তামাক নিয়ন্ত্রণের সুনির্দিষ্ট আইন আছে। এর ব্যবহার নিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থাও আছে। তা সত্ত্বেও তামাক ব্যবহারের এ হার বিশ্বের অন্যান্য দেশের চেয়ে অনেক বেশি এবং ক্রমাগতভাবে নতুন প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে ছড়াচ্ছে। অর্থাৎ তামাক কোম্পানির সক্রিয় চেষ্টা তামাক নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রমকে ব্যা (আরো পড়ুন )


তামাক নিয়ন্ত্রণ লক্ষ প্রাণ বাঁচাতে পারে

‘তামাক মৃত্যু ঘটায়’— এটি এখন কোনো কথার কথা নয়, বাস্তবে প্রমাণিত সত্য। শুধু মৃত্যু নয়, তামাক সেবনের কারণে ব্যবহারকারী যেসব মারাত্মক রোগের শিকার হয়, তা ভুক্তভোগীমাত্রই আমাদের অনেকের চেয়ে ভালো জানে। কিন্তু তামাক নেশাদ্রব্য, সহজে ছাড়া যায় না। বিষয়টি এখন বিশ্বে উদ্বেগ সৃষ্টি করেছে। প্রতিরোধযোগ্য এ রোগ ও মৃত্যু ঠেকাতে তাই বিশ্বব্যাপী তামাক নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম চলছে এবং অনেক ক্ষেত্রে সফলভাবে তামাক সেবন নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে। বাংলাদেশ সরকারও এ লক্ষ্যে কাজ করছে, কিন্তু তামাক কোম্পানির আগ্রাসী প্রভাবে এখনো কাঙ্ক্ষিত ফল পাওয়া যাচ্ছে না। কোম্পানি তামাক নিয়ন্ত্রণ হোক— এটা চায় না। তাতে তাদের ব্যবসায়িক ক্ষতি। তাই নিত্যনতুন কারসাজিতে (আরো পড়ুন )


তামাক উৎপাদন ও সেবন নিয়ন্ত্রণে জরুরি পদক্ষেপ নিতে হবে

তামাক সেবন ও উৎপাদন যা-ই করুন না কেন তা স্বাস্থ্য, পরিবেশ ও চারপাশে যারা আছেন, তাদের সবারই ক্ষতি করে। যে শিশু জন্ম নেয়নি, মায়ের পেটে রয়েছে, তার জন্যও তামাক সেবনকারী ক্ষতির কারণ হতে পারে। বড়ই নিষ্ঠুর ও হত্যাকারী এই পণ্য। নেশা জাগানো তামাকের কোনো ভালো গুণ খুঁজে পাওয়া যাবে না। এবং নেশা জাগানো যে কী ক্ষতি বয়ে আনতে পারে, তা একমাত্র ভুক্তভোগী ও তার পরিবার জানে। এর ক্ষতি নিয়ে বিতর্ক নেই, কিন্তু আফসোস হয় তামাকের নানা পণ্য, নানা ব্র্যান্ডের সিগারেট, বিড়ি, জর্দাগুলোর রমরমা ব্যবসা চলছে। কোম্পানিগুলো নানা কৌশলে এ ক্ষতিকর পণ্যের প্রতি ক্রেতাকে আকৃষ্ট করে তাদের বেঁধে ফেলেছে।

তামাকজাত দ্রব্যের উৎপাদন ও ব্যবহার জনস্বাস্থ্য, পরিবেশ, সামাজিক ও অর্থনৈ (আরো পড়ুন )


প্লেইন প্যাকেজিংয়ে তামাক পণ্যঃ তৈরি হও

সিগারেট, বিড়ি, জর্দার প্যাকেটে আকর্ষণীয় ছবি এবং কোম্পানি তার নিজের বিশেষ রং ব্যবহার করে ক্রেতাকে তার পণ্যের জন্যে ধরে রাখতে চায়। তাদের ইচ্ছা শুধু তামাক সেবনেই নয়, সেই বিশেষ কোম্পানির তৈরি করা ব্রান্ড ব্যবহারে। যারা সিগারেট খায় তারা কোন বিশেষ ব্রান্ডের সিগারেট খায় তা দিয়ে তার সামাজিক অবস্থানও বোঝাতে চায়। তাই ব্রান্ড, রং চিনে সিগারেট বা জর্দা ব্যবহার করে জোর গলায় বলবে সে কি ব্রান্ড খায়।

তামাক সেবন জনস্বাস্থ্যের জন্যের ক্ষতিকর এবং অকাল মৃত্যুর অন্যতম প্রধান কারণ বলে যখন থেকে স্বীকৃতি পেল তখন থেকে এর ব্যবহার কমাবার উদ্যোগ নেয়া হোল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পক্ষ থেকে। মে মাসের ৩১ তারিখ আন্তর্জাতিক তামাকমুক্ত দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে ১৯৮৭ (আরো পড়ুন )


তামাক চাষে স্বাস্থ্যের ক্ষতিঃ কঠোর পরিশ্রম, সার-বিষ ব্যবহার ও নিকোটিন সংক্রমণের ঝুঁকি

উবিনীগ গবেষনা ফলাফল
তামাক পাতা থেকে যা উৎপাদন করা হয় তাও স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর

  • তামাক খাদ্য ফসল নয়
  • তামাক পাতা দিয়ে যা উৎপাদিত হয়, তাও স্বাস্থ্যের জন্যে ক্ষতিকর এবং আইনে নিয়ন্ত্রণের ব্যাবস্থা করা হয়েছে, যেমন সিগারেট, বিড়ি, জর্দা, গুল, সাদাপাতা
  • তামাক পাতা উৎপাদনে সরকার নয়, দেশী ও বিদেশী কোম্পানি জড়িত
  • কোম্পানিগুলো হচ্ছে বিএটিসি, ঢাকা টোবাকো, আকিজ, আবুল খায়ের, ইত্যাদী
  • তামাকের ব্যাপক বাণিজ্যক চাষ করা হয় চারটি জাতের, এফসিভি, মতিহার, জাতি ও বার্লী

তামাক চাষে স্বাস (আরো পড়ুন )


তামাকের শৃংখল থেকে মুক্তিঃ

খাদ্য সংকট, পরিবেশ ও মানুষের স্বাস্থ্যের ক্ষতি রোধে তামাক চাষ নিয়ন্ত্রণ

তামাক কোন খাদ্য ফসল নয়, এমনকি কৃষি ফসলের পর্যায়েও পড়ে না। প্রয়োজনীয় কোন শিল্পের কাঁচামালও নয়। তামাক চাষ করা হয় পাতা উৎপাদন করার জন্যে যে পাতায় নিকোটিন থাকে বলে এই পাতা দিয়ে বিভিন্ন মানের ও ব্রান্ডের সিগারেট তৈরী করা হয়, বিড়ি ও জর্দা-গুল তৈরি করা হয়। বিশ্বব্যাপী এখন সচেতনতা বৃদ্ধ্বি এমন পর্যায়ে এসেছে যে ধূমপান ও ধোঁয়াবিহীন তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর এবং অনেক অসংক্রামক রোগ (NCD) যেমন হার্ট এটাক, হাই-ব্লাড প্রেসার, শ্বাস কষ্ট জনিত রোগ, ডায়াবেটিস ও অন্ত্রনালীর রোগের জন্যে দায়ী। সারা বিশ্বে প (আরো পড়ুন )


তামাকের ক্ষতি বনাম তামাক কোম্পানির পুরস্কার!

চলছে তামাক পাতার চাষ

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা আয়োজিত আবুধাবিতে ১৭ থেকে ২১ মার্চ অনুষ্ঠিত হলো ১৬তম 'তামাক নাকি স্বাস্থ্য' সম্মেলন। অসংক্রামক ব্যাধি (Non-Communicable Disease, NCD) এর আলোকে এ সম্মেলনে ব্যাপক আলোচনা হয়েছে। অনেক বড় সম্মেলন, প্রায় ১০০ দেশ থেকে ২ হাজার ১৮৪ জন অংশগ্রহণ করেছেন; কিন্তু আগে যারা অন্যান্য সম্মেলনে গেছেন তাদের এখানে অংশগ্রহণ আশানুরূপ ছিল না, বরং ছিল হতাশাব্যাঞ্জক। এ সম্মেলন আবুধাবিতে হওয়ার কারণে ভিসার সমস্যা ছিল বাংলাদেশসহ অনেক দেশের। বাংলাদেশ থেকে মাত্র আটজন যেতে পেরেছেন, যেখানে অন্তত ৩০ জন টিকিট কেটে হোটেল বুকিং দিয়ে এবং তাদের নিজ নিজ কাজ সম্পর্কে প্রস্তুতি (আরো পড়ুন )


ধোঁয়াবিহীন তামাকজাত দ্রব্যেরও কর বাড়ানো হোক

জাতীয় বাজেটে জনগণের ব্যবহার্য নিত্যপ্রয়োজনীয় ও বিলাস দ্রব্যের ওপর কর আরোপ করা হলে সে পণ্যের দাম বাড়বে কী বাড়বে না তা নির্ধারিত হয়। আমরা জানি, কর আরোপের সাধারণ উদ্দেশ্য রাজস্ব আয় বৃদ্ধি করা; কিন্তু রাজস্ব বৃদ্ধি করতে গিয়ে জনগণের ওপর যেন চাপ সৃষ্টি না হয় তার দিকেও নজর দিতে হয়। সরকারের দিক থেকে এসব বিষয় লক্ষ্য রাখা অত্যন্ত জরুরি। কর আরোপের মাধ্যমে নিষিদ্ধ নয়; কিন্তু মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর পণ্যের ব্যবহার কমানো ওই বিশেষ কৌশলে একটি বিশেষ পদক্ষেপ হিসেবে নেয়া যেতে পারে।

এমন কিছু পণ্য আছে যা ক্ষতিকর; কিন্তু দামে সস্তা হওয়ার কারণে ব্যবহার কমানো সম্ভব হয় না। সেক্ষেত্রে উচ্চ হারে কর আরোপ করে দাম বাড়িয়ে দেয়া জরুরি পদক্ষেপ হিসেবে স্বীক (আরো পড়ুন )


বিষাক্ত তামাকের হাত থেকে জীবন রক্ষা চাই

তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন সংশোধন

কিছু তথ্য ভয়াবহ। যেমন, তামাক ব্যবহারের প্রত্যক্ষ্ ফল হিসেবে প্রতি বছর ৩০ বছরের বেশী বয়স্ক জনগোষ্ঠির মধ্যে প্রতি বছর ৫৭,০০০ জন মৃত্যু বরণ করেন এবং ৩,৮২,০০০ জন পঙ্গুত্ব বরণ করেন। এই তথ্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার। এই সংখ্যা প্রতি বছরের। গত দশ বছরের হিশাব নিলে মাথা ঘুরে যাবে। আবার নিজে ধূমপান না করেও অন্যের ধূমপানের ফলে কর্মক্ষেত্রে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন ১ কোটি ১৫ লক্ষ মানুষ। বাড়ী ঘর, রাস্তা ঘাটের হিশাব নিলে এই সংখ্যা দুই তিনগুণ বেড়ে যাবে। বলা বাহুল্য, এর শিকার প্রধানতঃ নারী।

বাংলাদেশে ১৫ বছরের বেশী জনগোষ্ঠির মধ্যে ৪৩.৩% মানুষ কোন না কোনভাবে তামা (আরো পড়ুন )