উবিনীগ


উন্নয়ন বিকল্পের নীতি নির্ধারণী গবেষণা

বেগম রোকেয়া নয়, রোকেয়া খাতুনকে চিনুন

গত শতাব্দি থেকে একটি নাম নারী-পুরুষ নির্বিশেষে সকল শিক্ষিত মানুষের কাছে পরিচিত এবং গ্রহণযোগ্য সে নাম হচ্ছে রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন। তাঁকে সংক্ষেপে বেগম রোকেয়া বলা হয়, যদিও এই বেগম কোথা থেকে এলো তার কোন হদিস পাওয়া যায় না। বেগম তাঁর নামের অংশ নয়। তার আসল নাম রোকেয়া খাতুন। মুসলিম পরিবারের অতি চেনা একটি নাম। জন্ম ১৮৮০ সালে রংপুর জেলার মিঠাপুকুর উপজেলার পায়রাবন্দ গ্রামে। রোকেয়ার কারণে পায়রাবন্দ গ্রামও সারা বিশ্বে পরিচিত। শহর গ্রাম সব জায়গায় মেয়েদের নাম ‘রোকেয়া’ রাখা হয়। আমার বিশ্বাস রোকেয়ার কাজের কারণেও এই নাম অনেক প্রচার পেয়েছে। তাঁর বাবা জহিরুদ্দিন মুহাম্মদ আবু আলী হায়দার সাবের জমিদার ছিলেন, তিনি পুরুষতান্ত্রিক চরিত্রের ব্যতিক্রম (আরো পড়ুন )


লিঙ্গ সমতা অর্জনে ১১৮ বছর অপেক্ষার তত্ত্ব

বিশ্বের রাজনীতি, অর্থনীতি ও সমাজ উন্নয়নের মাপকাঠি হিসেবে নারীর কত উন্নতি হলো তা জানা শুধু আমাদের দেশের জন্যই নয়, বিশ্বের বড় বড় নীতিনির্ধারণী ফোরামের মাথাব্যথার কারণ হয়ে গেছে। নারীকে আর ঘরের চার দেয়ালের মধ্যে চিন্তা করার উপায় নেই। নারী এখন সব কিছুরই লক্ষ্য এবং উপায়। তাই আন্তর্জাতিক ফোরামে আজকাল নারীর কথা উঠে আসে বারবার।

সম্প্রতি নারী উন্নয়ন সংক্রান্ত দুইটি বিপরীতধর্মী তথ্য দেখে চিন্তিত হচ্ছি। একটি 'ভালো' খবর- দ্য ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের পর্যালোচনায় নারী-পুরুষের ব্যবধান কমিয়ে আনার ক্ষেত্রে দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে বাংলাদেশ। বিশ্বের ১৪৫টি দেশের নারীর পরিস্থিতি নিয়ে করা এ সূচকে চার ধাপ এগিয়ে বাংলাদেশ ৬৪ নম্বরে। এর আগে (আরো পড়ুন )


“ভগিনীগণ! চক্ষু রগড়াইয়া জাগিয়া উঠুন”

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বেগম রোকেয়া পদক বিতরণী অনুষ্ঠানে একটি অতি সত্য কথা বলে ফেলেছেন, যদিও এক পক্ষীয়ভাবে, বিরোধী দলীয় নেত্রীকে দোষারোপ করে। তিনি বুঝেছেন যে দুই নেত্রীকে জনগণ গালি দিচ্ছে। তিনি বলছেন বিরোধী দলীয় নেত্রী হরতাল-অবরোধ দিয়ে মানুষ না মারলে ‘দুই নারী হিশেবে গালি খেতে হতো না’। হরতাল অবরোধ করে যদি শুধু বিরোধী নেত্রীর দোষ হতো তাহলে দুই নারীকে জনগণ গালি দেবে কেন? যিনি অন্যায় করছেন তাকেই দেবে। জনগণ এতো অবিবেচক নয়। কাজেই ব্যাপারটা প্রধানমন্ত্রী স্বীকার না করলেও সত্যি যে আচরণ, প্রতিহিংসাপরায়ণতা এবং দোষারোপ করার দিক থেকে তারা দুই নেত্রী তাদের জায়গা থেকেই মূল্যায়ন করে। তারা বিষয়টি ভালোভাবে নিচ্ছে না, তাই দুই নেত্রীকেই প্রধান (আরো পড়ুন )


৩০০ আসনে নির্বাচন : বাকি ৫০টির কী হবে?

একদিকে জাতীয় সংসদ নির্বাচন হবে কি হবে না সংশয়, অন্যদিকে সরকারি দলের প্রস্তুতি চলছে মনোনয়নপত্র বিক্রির। এ যেন এক উৎসব। নাচানাচি হচ্ছে, ঢোল বাজছে। তবে এ উৎসবে আসনসংখ্যা গনা হচ্ছে ৩০০। মনে হচ্ছে এগুলো বেশির ভাগ পুরুষদের জন্য নির্ধারিত। মোটরসাইকেল র?্যালি করে এসে মনোনয়ন চাওয়ার মধ্যে তাই প্রতীয়মান হয়। তারা সবাই ৩০০ সাধারণ আসনের মধ্যে নিজ নির্বাচনী এলাকার মনোনয়নপত্র কিনছেন ২৫ হাজার টাকা দিয়ে। এরই মধ্যে সবার অজান্তে থেকে যাচ্ছে ৫০টি আসন, যা সংরক্ষিত নারী আসন নামে পরিচিত। যখন সংসদ অধিবেশন চলে তখন যিনি চালান অর্থাৎ স্পিকার, তিনি যে আসন থেকে এসেছেন সে আসনও এখন গনার বাইরে। এ বড় অদ্ভুত ব্যাপার। এ আসনগুলোর মর্যাদা কখন বাড়ে বা কমে তা বোঝার উপায় নেই। স্প (আরো পড়ুন )


সংরক্ষিত আসনে বিশেষ সুবিধা কার?

 জাতীয় সংসদে সাধারণ আসন সংখ্যা ৩০০ আর নারীদের জন্য সংরক্ষিত আসন ৫০টি, অর্থাৎ মোট ৩৫০ টি আসন রয়েছে।কিন্তু সামনে জাতীয় নির্বাচন নিয়ে এতো বিতর্কের মধ্যে যে বিষয়টি পরিস্কারভাবে কোন আলোচনায় আসছে না, সেটা হচ্ছে নির্বাচন আসলে কত আসনে হচ্ছে? জানি, অনেকে বলবেন, এখানে বলাবলির কি আছে, ৩০০ আসনে নির্বাচন হয়ে নির্বাচিত সদস্যরাই নারীদের মনোনয়ন (তাঁদের ভাষায় নির্বাচিত করে) দেবেন!সংরক্ষিত আসনে সরাসরি নির্বাচনের জন্য নারী আন্দোলনের দীর্ঘ দিনের দাবী উপেক্ষিত হচ্ছে ক্রমাগতভাবে।

হ্যাঁ, দুঃখের বিষয় হচ্ছে, এটাই নিয়ম সাংবিধানিকভাবে। ১৯৭১ সালে নয়মাসের মুক্তিযু (আরো পড়ুন )